পরিব্রাজক ও হওয়া যায়… দার্জিলিং ২

পর্যটক না হয়ে পরিব্রাজক হওয়া উচিত আমাদের। পায়ে হেঁটে ঘুরলেই আসল স্বাদ পাওয়া যায় ঘোরার, চিন্তে পারা যায় son of the soil-দের, জানতে পারা যায় তাদের রোজনামচার খুঁটিনাটি। গাড়িতে বসে দেখা কোনো সুন্দর দৃশ্য হুশ করে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাবেন আপনি কিন্তু হেঁটে গেলে সেটাকেই আপনি উপভোগ করতে পারবেন অনেক্ষন ধরে। এই সত্যটা অনুধাবন করলাম দার্জিলিং ঘুরতে ঘুরতে। এই ক্ষেত্রে আমি পর্য-ব্রাজক.13আমরা ছিলাম Mall এর কাছেই দার্জিলিং ট্যুরিস্ট লজে, আমরা বলতে দুজন, আমি আর শারবা। ১৫০০/- – ২০০০/- টাকা খসিয়ে গাড়ি করে ঘুরবনা ঠিক করেছিলাম। তাই পায়ে পায়ে বেরিয়ে পরলাম সকাল সকাল। হোটেল থেকে ঢালু রাস্তা ধরে হেঁটে নেমে আসতে হয় Gorkha Ranga Manha এর সামনে, ৪-৫ মিনিটের রাস্তা, পথে পড়বে St. Andrew’s Church আর Darjeeling Gymkhana Club।dd1dd2দার্জিলিং ট্যুরিস্ট লজ  থেকে Gymkhana Clubএর টেনিস খেলা উপভোগ করতে পারেন আপনি যদি সেটা ছুটির দিন হয়, যেন প্রকৃতির  মাঝে ছোট্ট একটা Wimbledon. আস্তানার এত কাছে একটা চার্চ কিন্তু ম্যাস অ্যাটেন করা হয় নি  শুধু  কুঁড়েমির জন্য, পরের বার যাবই, আর Gorkha Ranga Manhaতে ঢোকা অনুমতি সাপেক্ষ।  ঝটাপট  ছবি তুলে আমরা এখান থেকে ডান দিকের রাস্তা ধরলাম। dd8.jpgএকটু এগিয়ে একটা তেমাথা, সেখানে একটা  boredএ direction দেওয়া আছে। কাছেই একটা বেঞ্চে বসে পড়ে নিলাম পুরোটা  আর ছকে নিলাম প্ল্যান। ডানদিকে মহাকাল মন্দির আর observatory point, সেদিকে না গিয়ে আমরা হাঁটা  শুরু করলাম সোজা রাস্তা ধরে। dd3dd4 ‘৯২ সালে প্রথম যেবার এসেছিলাম সেবারও আমরা হেঁটেই গেছিলাম, কিছু কিছু কথা মনে আছে, সেবার রাস্তার ধারে বুনো গোলাপ দেখেছিলাম, এই ফুলে গোলাপের মত সুগন্ধ  নেই, গন্ধহীন। ৩-৪ KM রাস্তা হাঁটতে হাঁটতে আমরা কত ছবি তুল্লাম, দুচোখ ভরে প্রকৃতিকে অনুভব ্করলাম এবং পৌঁছে গেলাম Himalayan Mountaineering Instrituteএ। dd6dd7Musiumটা ঘুরে দেখবেন, ওখানে Hitlerএর present করা একটা telescole আছে,ইচ্ছা ছিল ওটা ধরে দেখার, ছবি তোলার কিন্তু ওটা prohibited. পরেরবার ঠিক permission করিয়ে আসব। পাশেই Padmaja Naidu Himalayan Zoological Park, the largest high-altitude zoo in India.

ওখান অনেকটা সময় কাটিয়ে আমরা পাড়ি লাগালাম দার্জিলিং রোপওয়ের দিকে। প্রথমে পায়ে পায়ে নেমে আসলাম চকবাজার থেকে সিংহমারি যাওয়ার রাস্তায়, সেখান থেকে শেয়ার ট্যাক্সিতে ১০ টাকায় পৌঁছে গেলাম সিংহমারি। Kanchenjungaর দেখা আসা ইস্তক পাই নি তার কারন ঘন কুয়াশা কিন্তু এখানে এসে দেখলাম আজ উনি উঁকি দিচ্ছেন দূরে কাজেই আগামীকাল টাইগার হিল যাওয়াটা ফাইনাল করে ফেললাম। k3ওখানে ঘণ্টা খানেক কাটিয়ে আবার আমরা শেয়ার ট্যাক্সি ধরলাম আর চলে আসলাম চকবাজার। চকবাজার থেকে শর্টকাটে চড়াই ভেঙ্গে উঠে আসলাম Mallএ। চড়াই ভেঙ্গে আসতে সময় কম লাগে কিন্তু পরিশ্রম বেশি,  আমরা Mallএ এসে রেস্ট নিলাম কিছুক্ষণ… ওখান থেকে উঠে মহাকাল মন্দির আর observatory point ঘুরে আমরা চললাম lunch করতে। দারুন খাবার খেয়ে  আমরা এবার পাড়ি লাগালাম আভা আর্ট গ্যালারির দিকে, Mall থেকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার। রাস্তা ঢালু তাই বেশি কষ্ট হয়নি যদিও বুঝতে পারলাম ফেরার সময় ব্যাপারটা  মোটেও সহজ হবে না। প্রায় চারটে বেজে গেছিলো পৌছাতে, ওখানে আধা ঘণ্টা কাটিয়ে আমরা বেড়িয়ে  আসলাম বাইরে, স্থানীয় এক বাসিন্দাকে জিজ্ঞাসা করলাম কি করে চকবাজার ফেরা যায়। জানতে পারলাম যে সরকারি বাস পাওয়া যাবে এই রাস্তা থেকেই কাজেই একটু খালি যায়গা দেখে পথের পাশে একটা পাথরের উপর বসে বাসের অপেক্ষা করতে লাগলাম। মিনিট ২০ পর সেই বাস এল এবং আমরা আবার ফিরে চললাম চকবাজার। আজকের মত ঘোরা খতম্‌ , চকবাজার থেকে সেই শর্টকাটে ধরে উঠে আসলাম Mallএ, এখান থেকে আমাদের হোটেল হাঁটা পথে দুমিনিট।

Advertisements

6 thoughts on “পরিব্রাজক ও হওয়া যায়… দার্জিলিং ২

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s