Taptapani

img_0489কালকেই কথা বলা ছিল তাই breakfastএর পর আমরা সময় নষ্ট না করে গাড়ি নিয়ে বেড়িয়ে পড়লাম গোপালপুর থেকে। শহর ছাড়িয়ে আমাদের গাড়ি অচিরেই হাইওয়ে দিয়ে ছুটতে শুরু করল, ৩৬০ ডিগ্রী প্যারানমিক ভিউ তে ছোটো বড় পাহাড়, মাঝে মাঝে কিছু জনপদ, আগভীর বনভূমি আর একরাশ খোলা আকাশ। img_0494জানালা দিয়ে ছুটে আসছে দুরন্ত হাওয়া আর আমরা পাহাড়ী রাস্তা ধরে পেঁচিয়ে পেঁচিয়ে উপরে উঠছি এবার, চারিদিকের ঘন সবুজে মন জুড়িয়ে যাচ্ছে। ঘোর ভাঙল যখন গাড়ি Taptapani Panthanivasএ এসে দাঁড়ালো, নিঃসংগতার মাঝে অপরুপ অবস্থান। 20160402_105728এখন পর্যন্ত আমরা যে কটা পান্থনিবাসে থেকেছি তাদের থেকে বিল্কুল আলাদা এখানকার পরিবেশ, পাহাড়ের কোলে জঙ্গলের মাঝে ধাপে ধাপে সুন্দর করে সাজানো এই পান্থনিবাস।20160402_105739 ঢুকে বাঁ দিকে মেইন বিল্ডিং, তাতে রিসেপশান আর দু-চারটে রুম, সামনে পোর্টিকোর নীচে বসার জন্য চেয়ার টেবিল পাতা, সামনেই একটা ফোয়ারা আর চারিদিকে ফুলের সুন্দর বাগান। আরও এগোলে গাছের ফাঁক দিয়ে চোখে পড়বে এদিক ওদিক ইতস্থত ছড়িয়ে থাকা কাঠের কটেজ আর দোতলা রুমগুলো। 20160402_111006একদম নিস্থব্ধ পরিবেশ, ঝিঁঝিঁপোকা ডাকছে, পাশেই একটা চিলড্রেন পার্ক, আমরা একটু এগিয়ে পৌঁছে গেলাম কাঁচ  ঘেরা ডাইনিং হলে। সামনেই খাদ আর ওপাশে সবুজ জঙ্গলে ঢাকা পাহাড়, আমরা এখানে থাকবো না ভেবে বেশ হতাশই হলাম, লাঞ্চের order দিয়ে আমরা যাব চন্দ্রগিরি, সেখান থেকে ঘুরে ফেরত আসব তপ্তপানি।img_0493 চন্দ্রগিরি থেকে ফেরার পথে চমক বাকি ছিল, আমাদের অজানা খাসাডা ফলস্‌ দেখে মুগ্ধ চিত্তে আমরা চলে আসলাম তপ্তপানি। উষ্ণ প্রস্রাবনের সাথে এখানে আছে ছোট একটা মন্দির। 20160402_121442পাহাড়ের ফাটল দিয়ে উঠে আসছে সালফার মিশ্রিত জল আর জমা হচ্ছে ছোট কুণ্ডে, সেই কুণ্ড থেকে জল এসে জমা হচ্ছে পাঁচিল ঘেরা একটা চৌবাচ্চা বা ছোটোখাটো একটা পুলে, এখানে চাইলে আপনি ওই উষ্ণ প্রশ্রাবনের জলে ডুব দিতে পারেন।20160402_154231কথিত আছে এই জলে চান করলে রোগ থেকে মুক্তিলাভ সম্ভব যদিও ওই অপরিছন্ন জলে পা ডুবিয়েই আমরা ক্ষান্ত থেকেছি। তবে এই জলের উষ্ণতা খুবই আরামদায়ক কাজেই একান্তই যদি চানের মজা উপভোগ করতে চান তাহলে ৩৬০০/- টাকা দিয়ে পান্থনিবাসের ডিলাক্স স্যুট বুক করে তার স্নান ঘরের বাথটবে প্রশ্রাবন থেকে  আসা পরিস্কার জলে গা ডুবিয়ে বসে থাকুন, বেশ একটা Jacuzzi Jacuzzi ফিলিং পাবেন।

পাশের মন্দিরের প্রতি কোনো আকর্ষণ না থাকায় আমরা জঙ্গুলে পথে একটু ঘরাঘুরি করে চলে আসলাম পান্থনিবাস। সর্বপ্রথম আমরা সুস্বাদু খাবার দিয়ে পেটপুজা সারলাম তারপর পান্থনিবাসের আনাচে কানাচে ঘুরে ঘুরে প্রকৃতির মজা লুটতে থাকলাম। 20160402_105405আজ আর কোথাও যাওয়া বাকি নেই, এখান থেকে ফিরে যাব গোপালপুর তাই বেশ কিছুটা সময় এখানে কাটিয়ে আমরা গাড়িমুখো হলাম, ফেরার সময় হল…

Advertisements

One thought on “Taptapani

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s