গোপগড়এর ইতিহাস

15727057_1312438582111745_3657168786342226358_n মেদিনীপুর শহরের প্রায় তিন কিলোমিটার পশ্চিমে গোপ গিরি নামে একটি ছোট পাহাড় আছে। জনশ্রুতি, ঐ স্থানে মহাভারতোক্ত মৎস্তাধিপতি বিরাট রাজার “দক্ষিণ গোগৃহ” ছিল। বর্তমান যুগের পণ্ডিতগণ পুরাতন  রাজপুতানার মধ্যে মৎস্তদেশের অবস্থান-নির্দেশ করে থাকেন। 15665974_1312438592111744_7409707145620309620_n15697703_1312438322111771_7470150239653301451_nকিন্তু পশ্চিমবঙ্গের বিশেষতঃ উত্তরে রঙ্গপুর জেলার গাইবাধা মহকুমা থেকে দক্ষিণে মেদিনীপুর জেলার কাথি মহকুমার মধ্যবর্তী ভূভাগের নানা স্থানে মৎস্তদেশাধিপতি বিরাট রাজার বাড়ী ও গোগৃহাদির চিহ্ন প্রদর্শিত হয়ে থাকে। অনুমান, মৎস্তদেশাধিপতি বিরাটের সহিত এই সকল কীৰ্ত্তির কোন সম্বন্ধ নাই ; এগুলি বৌদ্ধকীৰ্ত্তি।15698166_1312438682111735_7360703034187449629_n15723433_1312438348778435_8499546388316484330_oকালক্রমে বৌদ্ধ ধৰ্ম্ম লোপের সঙ্গে সঙ্গে প্রাচীন বৌদ্ধ বিহারগুলি যেভাবে হিন্দু দেব-দেবীর মন্দিরে পরিণত হয়ছিল, এই স্থানও সেই কারণে এইরূপ পৌরাণিক গোপগিরি আখ্যাপ্রাপ্ত হয়ে থাকবে। আর যে সব স্থানে সেরূপ সুবিধা হয় নি, সে সব স্থান হিন্দুদের দ্বারা পরিত্যজ্য হয়ে আছে। উড়িষ্যার উদয়গিরি ও খণ্ডগিরি তার উজ্জল দৃষ্টান্ত।15723796_1312438785445058_35886313088498339_o15727309_1312438325445104_6544230431569645652_nশ্রী চৈতন্যদেব যখন পুরুষোত্তম ক্ষেত্রে গমন করেন, তখন পথে যেকটা হিন্দুতীর্থ পেয়েছিলেন তার সবকটাই দর্শন করেছিলেন, কিন্তু উদয়গিরি বা খণ্ডগিরির উপরে উঠেছিলেন বলে কোনও প্রামাণিক গ্রন্থ নেই। সারদাচরণ মিত্র মহাশয় লিখেছেন, “উদয়গিরি ও খণ্ডগিরি তখন পৌরাণিকদিগের প্রায়ই ত্যাজ্য ছিল । এখনও গিরিদ্ধয় আমাদের তীর্থ নয়।”15732273_1312438988778371_8080533735150526538_o15732310_1312438458778424_5577337104472944061_oরায়বণিয়া দুর্গের প্রসঙ্গে কোটদেশের বিরাটগুহ নামক এক রাজার নামোল্লেখ আছে। অনুমান, মেদিনীপুর জেলায় যে সব কীর্তি মৎস্তদেশাধিপতি বিরাট রাজার কীর্তি বলা হয়ে থাকে, সে সব আসলে কোটদেশাধিপতি উক্ত বিরাট রাজার কীৰ্ত্তি। এই জেলার অন্তর্গত প্রাচীন দন্তপুর বা আধুনিক দাতন শহরের ছয় কিলোমিটার দূরে রায়বণিয়া গড়ে বিরাট রাজার রাজধানী ছিল।15732483_1312438758778394_6361081600218372620_o15732701_1312438725445064_6435098112152376726_oপ্রাচ্যবিদ্যামহার্ণব নগেন্দ্রনাথ বসু মহাশয় অনুমান করেন, এই বিরাটগুহ দস্তপুরের সেই প্রাচীন রাজা গুহশিব বা শিব গুহের বংশধর ; পরবর্তিকালে তাদের প্রভুত্ব সমস্ত গড়জাত প্রদেশে বিস্তৃত হওয়ায় তাদেরই বংশধর বিরাট গুহ রামচরিতের টীকায় গৌড় কবির নিকট “নানারঙ্কু-কুটকুটিম-বিকট-কোটটবী-কক্টরবো দক্ষিণসিংহাসন চক্রবর্তী” বলে পরিচিত হয়ে থাকবেন । 15747444_1312438788778391_3630154168765218146_nএই বিরাট গুহ সম্বন্ধে বিশেষ আর কিছু জানা যায় না। তিনি যদি শিবগুহর বংশধর হন, তাহলে অনুমান করা যায় যে, তিনিও বৌদ্ধ ধৰ্ম্মাবলম্বী ছিলেন এবং সেই কারণে পৌরাণিকগণ উত্তরকালে তার কীৰ্ত্তির সাথে মৎস্তদেশাধিপতি বিরাট রাজার নাম যুক্ত করে দিয়েছেন। বিশেষতঃ স্থানটর নাম গোপ বলিয়া গোগৃহ নামটাও সহজে মিলে গিয়েছে। বিশ্বকোষ কাৰ্য্যালয়ে রক্ষিত একটি প্রাচীন কুলগ্রন্থেও নগেন্দ্র বাবু বিরাট রাজার নাম পেয়েছেন। তিনিও সেই বিরাট, কোটদেশাধিপতি বিরাট ও মেদিনীপুরের বিরাট রাজা, এই তিন বিরাটকে একই ব্যক্তি বলে মনে করেন ।15747770_1312438635445073_3604179489744322928_nগোপ গিরির অবস্থান দেখলে মনে হয়, এক সময় ঐ স্থানে একটা গড় বা দুর্গ ছিল এবং তারই উপযোগী করে পাহাড়টাকে কেটে ছেঁটে নেওয়া হয়ছে। আইন-ই-আকবরীতে দেখা যায়, সে সময় মেদিনীপুর শহরে দুটি দুর্গ ছিল। প্রত্নতত্ত্ববিদ মনোমোহন চক্রবর্তী মহাশয় অনুমান করেন, তন্মধ্যে এই স্থানের দুর্গটি অন্তঃতর, দ্বিতীয়টি মেদিনীপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এবং এখন ‘পুরাতন জেল’ নামে পরিচিত।15780689_1312438382111765_3525608167242841158_n

15780798_1312438485445088_6241814906214170561_nহিন্দুরাজত্বের পর এই দুটি দুর্গই নবাবদের দখলে এসে থাকবে । কিন্তু সেই সময় মেদিনীপুর শহরের মধ্যস্থিত দুর্গটি প্রধান দুর্গ হওয়ায় গোপ দুর্গটির তখন বোধ হয় আবশ্বকতা ছিল না। ফলে বহুকাল অব্যবহার্য্য অবস্থায় পড়ে থাকায় দিনে দিনে ওটি ধ্বংস হয়ে যায়।15800050_1312438535445083_6906810469504444409_o15800186_1312438698778400_5180889535236343350_oউত্তরকালে, প্রায় একশো বছর আগে, সেই ধ্বংসাবশেষ নিয়ে উক্ত স্থানের ভূম্যধিকারী তেলিনীপাড়ার বন্ধ্যোপাধ্যায় বংশীর জমিদারগণ গোপ গিরির উপরে এক সুবৃহৎ অট্টালিকা নিৰ্ম্মাণ করেছিলেন। কালচক্রে তাও এক্ষণে ধ্বংস হয়া এবং সেই ধ্বংসস্তূপই আপনি আজ গোপগড় হিসাবে যেনে থাকেন।

গোপ গিরির উপরে ত্রিকোণমিতিক জরীপের একটা স্তম্ভ আছে এবং গোপ গিরির পাদদেশে পুরাতন বোম্বে রোড়ের উপর  গোপ নন্দিনী নামে এক প্রাচীন দেবীর মন্দির আছে।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s